সমুদ্রের তলদেশে গভীর অন্ধকারে মাছ কিভাবে রঙ্গিন জিনিস দেখতে পায়!

সমুদ্রের তলদেশে গভীর অন্ধকারে মাছ কিভাবে রঙ্গিন জিনিস দেখতে পায়!
 

আমরা আমাদের বিজ্ঞানে যেটা জানি সেটা হচ্ছে কোন জিনিস যদি দেখতে হয় তাহলে তার প্রধান শর্ত হচ্ছে আমাদের চোখে বস্তুটির থেকে আলো এসে পড়তে হবে । তবেই আমরা সেই জিনিসটাকে দেখতে পাবো। তাহলে গভীর সমুদ্রে যেখানে সূর্যের আলো পৌঁছায় না সেখানকার প্রাণীরা কীভাবে দেখে?

তাহলে কি তাদের বিজ্ঞান আলাদা!

সমুদ্রের তলদেশে গভীর অন্ধকারে মাছ কিভাবে রঙ্গিন জিনিস দেখতে পায়!
pc: the newyork times

সিলভার স্পিনিফিন এবং ডরি মাছ সমুদ্রে আধা কিলোমিটার গভীরে চলে যায়। যেখানে সূর্যের আলো নাই বললেই চলে। কোন প্রানী সেখানে কিছু দেখতে পায় না। কিন্তু সেখানেও তারা কয়েকটি রং এর অবয়ব দেখতে পারে।

বিজ্ঞানীরা সাধারণত বোঝেন যে গভীর সমুদ্রের রঙের দৃষ্টি প্রয়োজন ছিল না। এটি সানবেবগুলি ঢেলে দেওয়ার জন্য খুব বেশি দূরে নয়, তাই রঙের উপায় দিতে কোনও আলো নেই। কিন্তু বিজ্ঞানের বৃহস্পতিবার প্রকাশিত এক গবেষণায়, রঙিন দৃষ্টিভঙ্গির বিবর্তনে আগ্রহী গবেষকরা ১০১ টি ভিন্ন মাছের জিনোম বিশ্লেষণ করেছেন। তারা আবিষ্কার করেছিল যে, এক, রৌপ্য স্পিনিইনফিনে গ্রহের অন্য কোন মেরুদন্ডের চেয়েও কমপক্ষে আলোর আলোর জন্য আরও জিন রয়েছে। এই জিনগুলি সমুদ্রের সমুদ্রের অবশিষ্টাংশের দৈর্ঘ্য এবং বায়োলিউমিনিসেন্সের সম্পূর্ণ বর্ণমালা দেখতে সক্ষম করে। অন্যান্য মাছের গভীর সমুদ্রের রং সনাক্ত করার ক্ষমতাও থাকতে পারে।

মেনোয়ার হাওয়াই বিশ্ববিদ্যালয়ে দৃষ্টিভঙ্গি কিভাবে উদ্ভূত হয়েছিল এবং গবেষণায় জড়িত ছিল না, তা গবেষণায় মেগান পোর্টার বলেন, “মেরুদন্ডী মাছের মধ্যে এইরকম কিছুই দেখা যায় নি।” “গভীর সমুদ্রের ভিজ্যুয়াল সিস্টেমগুলি কীভাবে বিকশিত হয়েছিল তা আমরা বুঝেছি, এর অর্থ এই যে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি কীভাবে আলোক আলোতে কাজ করে এবং কাজ করে তা প্রশ্ন করতে হয়।”

সূত্রঃ the newyork times 

 

Facebook Comments
পোস্টটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন: