পুরুষাঙ্গের আকার নিয়ে গর্বিত বা দুঃখিত!

পুরুষাঙ্গের আকার নিয়ে গর্বিত বা দুঃখিত!
 

যৌন শিক্ষা আমাদের দেশে শূন্যের কোঠায় এটা মোটামুটি নিশ্চিত বলে দেয়া যায়। যৌনতাকে ট্যাবু বানিয়ে রাখার ফলাফল বাংলাদেশ হাতে-নাতে পেয়েছে। যে দেশের মানুষ যৌনতা শব্দটা শুনলেই লজ্জা পায় সেই দেশের জনসংখ্যা বিষ্ফোরণ কীভাবে সেটা আসলে ভাবার বিষয়। আর এর সুযোগ ব্যবসায়িকরাও কম নিচ্ছেনা।

গবেষণা মতে ৮৫% নারীই তাদের সঙ্গীর পুরুষাঙ্গের আকৃতি নিয়ে সন্তুষ্ট, যেখানে কেবল ৫৫% পুরুষ তাদের নিজেদের পুরুষাঙ্গের আকৃতি নিয়ে সন্তুষ্ট। গবেষণায় দেখা যাচ্ছে যে যখন সঙ্গমের প্রশ্ন আসে তখন নারীরা আপনার পুরুষাঙ্গের আকৃতির চাইতে আপনি রোম্যান্টিক, দরদী, যত্নবান, এবং তাদের প্রয়োজনের ও চাহিদার প্রতি সহানুভূতিশীল কিনা এগুলোর প্রতি বেশি নজর দেন। এই যে পুরুষ অসুখি তার সুযোগ নিচ্ছে ব্যবসায়ি মহল। পৃথিবী জুড়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এই উদ্বেগকে কাজে লাগিয়ে ট্যাবলেট, লিঙ্গ দীর্ঘ করার সরঞ্জাম এবং অন্যান্য জিনিস, যা দিয়ে “পুরুষাঙ্গ দীর্ঘ ও মোটা” করা যাবে (বিফলে মুল্য ফেরত!), বিক্রি করে আসছে। যা প্রায় সবই যৌন এবং শারীরিক ভাবে অত্যন্ত ক্ষতিকর।

অন্যের পুরুষাঙ্গ কেন দেখতে বড় লাগে, নিজেরটা কেন ছোট? 

আপনি যখন আপনার নিজের পুরুষাঙ্গের দিকে তাকান তখন তা আপনার কাছে এটি যতটা না ছোট তার চেয়ে বেশি ছোট মনে হয়। কিন্তু অন্য কারো পুরুষাঙ্গের দিকে তাকালে, মুলত একপাশ থেকে দেখার কারনে, এটিকে যতটা না বড় তার চেয়ে বেশি বড় মনে হয়।

অন্যের দৃষ্টি ভঙ্গিতে নিজের পুরুষাঙ্গ দেখতে চাইলে একটি পূর্ণ মাপের আয়নার সামনে বিবস্ত্র হয়ে দাঁড়িয়ে নিজেকে দেখুন। উপর থেকে তাকালে যা মনে হয় তার চেয়ে বড় ও লম্বা মনে হবে। বেশিরভাগ ছেলেই কোন না কোন সময় একটি স্কেল বা টেপ দিয়ে তাদের পুরুষাঙ্গ মেপে দেখেন।

বিশেষজ্ঞদের মতে পুরুষাঙ্গ শিথিল থাকা অবস্থায় এটি করার কোন মানে হয় না কারণ, এসময় পুরুষাঙ্গের মাপ বিভিন্ন কারণে (যেমনঃ ঘরের তাপমাত্রা) বিভিন্ন রকম হতে পারে। সঠিক মাপ পাওয়ার জন্য যখন পুরুষাঙ্গ সুদৃঢ় অবস্থায় থাকবে তখন মাপুন। তল পেটের কাছে পুরুষাঙ্গের গোড়া থেকে নিয়ে আগার ছিদ্রটি পর্যন্ত দৈর্ঘ্য মাপুন।

পুরুষাঙ্গের মাপ কেমন আসলে কেমন  হওয়া উচিত?

টিনেজারদের জন্য এর কোন গড় দৈর্ঘ্য নেই, কারণ একেক জন একেক গতিতে বেড়ে ওঠে। পূর্ণ বয়স্কদের ক্ষেত্রে পুরুষাঙ্গের আকার এর গড় ১৪-১৬ সে.মি. (৫.৫-৬.৩ ইঞ্চি)। একটি সুদৃঢ় পুরুষাঙ্গের ঘের হয় ১২-১৩ সে.মি. (৪.৭-৫.১ ইঞ্চি)।

একটি পুরুষাঙ্গকে অস্বাভাবিক ছোট মনে করা হয় যদি সুদৃঢ় অবস্থায় এটির দৈর্ঘ্য ৩ ইঞ্চি (৭.৬ সে.মি.)-এর কম হয়। সুদৃঢ় অবস্থায় পুরুষাঙ্গ বিভিন্ন কোনে থাকতে পারে। কোন উত্তেজিত পুরুষাঙ্গ একদম সোজা উপরের দিকে তাক হয়ে থাকে, কোনটি একেবারে নিচের দিকে। কোন কোনটি সামান্য ডানে বা বামে বেঁকে থাকতে পারে। ‘সঠিক’ ভঙ্গি বলতে কিছু নেই। যদি আপনার পুরুষাঙ্গ বেশি রকমের বেঁকে থাকে এবং এতে সঙ্গমের সময় আপনার অসুবিধা হয় তাহলে ডাক্তারের কাছে যান। কিছু কিছু ক্ষেত্রে এটি পিরোনি’স ডিজিজ (Peyronie’s disease)-এর লক্ষন।

পুরুষাঙ্গ বড় হলে মেয়েদের বাহবা পাওয়া যায় ?

এটা আসলে কোটি টাকার প্রশ্ন । উত্তর হচ্ছে যদি কোন মেয়ে এটা মনে করে থাকে যে , সেক্স এর আবেগ কেমন হবে এটা নির্ভর করে পুরুষাঙ্গের আকার এর উপরে তাহলে সেও আপনার মতো অন্ধকারে ডুবে আছে ।

আরও পড়ুনঃ নিজেকে মৃত ভাবা রোগঃ কটার্ড সিনড্রোম

 

Facebook Comments
পোস্টটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন: